লাইফস্টাইল

কফির উপকারিতা এবং অপকারিতা

কফির উপকারিতা

বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় এবং পান করা পানীয় হচ্ছে কফি।বিশ্বজুড়ে কফি প্রেমীরা যারা তাদের সকালের প্রিয় পানীয় হিসেবে কফি পছন্দ করেন তারা সম্ভাব্য এর স্বাস্থ্য উপকারিতা এবং ঝুঁকি নিয়ে ভাবেন না । মানুষ যখন কফি নিয়ে চিন্তা করে তখন তারা সাধারণত ভাবতে পছন্দ করে কফি একটি মাইন্ড রিফ্রেসার।সকাল বেলার এক কাপ কফি আপনার দিনটিকে আরো সুন্দর এবং আপনাকে মানসিকভাবে অনেক চাঙ্গা করে তুলতে পারে। কিছু গবেষণা অনুসারে এটি লিভারের ক্যান্সারের ঝুঁকি, টাইপ 2 ডায়াবেটিস এবং হার্ট ফেইলিওর মতো আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্য ঝুঁকি থেকে আমাদেরকে রক্ষা করতে সাহায্য করে । আমরা সবাই জানি ধূমপানের কারণে ফুসফুসে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। আপনি যদি পরিমিত পরিমাণে কফি পান করেন তাহলে ধূমপানের কারণে সৃষ্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি কিছুটা হ্রাস পাবে। আপনি জানলে অবাক হবেন বিশেষজ্ঞরা অনুমান করেন বিশ্বজুড়ে মানুষ প্রতিদিন প্রায় ২.২২ বিলিয়ন কাপ কফি পান করেন। বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন কফি পান করার মাধ্যমে ডায়াবেটিস, কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ, পেটের রোগ এবং লিভারের রোগে ভুক্তভোগী রোগীরা উপকৃত হন ( যদিও এটির অনেক ভিন্ন মত আছে ) কফিতে রয়েছে রিবোফ্লাভিন (ভিটামিন বি -২), নিয়াসিন (ভিটামিন বি -৩), ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম এবং বিভিন্ন ফেনলিক। এগুলি একত্রিত হয়ে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সহ বেশ কয়েকটি দরকারী পুষ্টি উপাদান উৎপন্ন করে। কফিতে থাকা এই উপাদানগুলি মানব দেহে বিভিন্ন উপকারে আসতে পারে।

এই লেখায় কফি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। কফি নিয়ে আপনার ধারণা, কফি নিয়ে আপনার অজানা বিষয় গুলি তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে আশাকরি সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে আপনি উপকৃত হবেন এবং নতুন কিছু জানতে পারবেন।

কফির আবিষ্কার

কফির ইতিহাস

কফির ইতিহাস কি? কিভাবে এবং কখন আমরা এই তরল সোনা পান শুরু করি।কফি আমাদের অনেকের জন্য দিনের শুরুতে নিজেকে আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী রাখতে সকাল বেলার গুরুত্বপূর্ণ পানীয় হয়ে উঠেছে,কফির ইতিহাস শুরু হয় ইথিওপিয়ার একটি ছাগল চাষীর সাথে। যা আজ বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ,কপি হচ্ছে বিশ্বের সর্বাধিক সেবনকারী পানীয়, শত শত বছর আগে ( যাদুকরী শক্তি প্রদানের বৈশিষ্ট্য) আবিষ্কৃত হওয়ার পরে কফি নিজেই কয়েকটি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে গিয়েছে। আমরা কিভাবে একটি ছোট উজ্জ্বল লাল শিমকে প্রতিদিন 2 বিলিয়ন বার পানীয়তে পরিণত করেছি এই লেখায় আপনাদের এই বিষয়ে জানানোর চেষ্টা করব।

কফির শুরু

কফির শুরু

কফির উৎসের সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য এবং বিশ্বস্ত বর্ণনা থেকে জানা যায় কলডি নামে এক ছাগল পালক যিনি নবম শতাব্দীর সময় কালে ইথিওপীয় মালভূমিতে বাস করতেন,তিনি সর্বপ্রথম একটি ছোট উজ্জ্বল লাল শিম থেকে কফির শক্তিশালী প্রভাব লক্ষ্য করেছিলেন, একদিন কলডি লক্ষ করলেন তার কিছু ছাগল একটি গাছের ফল খেয়ে অস্বাভাবিক আচরণ করতে লাগলো । যা অবশ্যই স্বাভাবিক ছিল না তিনি আবিষ্কার করলেন ছাগলগুলি লাল শিম খাবার পর থেকেই এরকম অদ্ভুত আচরণ করছে। কলডি শিম টি ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিলেন। তিনি স্থানীয় সন্ন্যাসীদের সাথে নিজের আবিষ্কার ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিলেন পরীক্ষামূলক ভাবে তিনি প্রথমে কিছু শিমকে আগুনে ফেলে দিলেন এবং লক্ষ করলেন একটি উপভোগ্য সুগন্ধ দ্রুত আগুন থেকে বেরিয়ে আসছে । কলডি আরো গবেষণা করার জন্য কিছু সন্ন্যাসী কে বেছে নিলেন,তারা কিছু শিম গুঁড়ো করে পানির সাথে মিশিয়ে পান করার পন্থা বেছে নিলেন। সন্ন্যাসীরা প্রার্থনা করার জন্য রাতে জাগ্রত থাকতেন । কলডি দেখতে চেয়েছিলেন এটি কিভাবে সন্ন্যাসীদেরকে সহায়তা করতে পারে কারণ সন্ন্যাসীরা এমন কিছু খুঁজে পেতে খুবই আগ্রহী ছিলেন যা তাদেরকে রাত্রিযাপনে সাহায্য করবে। কফি ব্যবহারের পর তারা আশা অনুরূপ ফলাফল পাওয়ার মাধ্যমে অন্যান্য সন্ন্যাসীদের কাছে কফি প্রেরণ করতে লাগলেন এবং এর থেকেই শুরু হলো কফির যাত্রা।

কফির ধরণ

কফির ধরণ

পৃথিবীতে অনেক ধরনের কফি পাওয়া যায় আপনি হয়তো রেস্টুরেন্টে কফির মেনুতে দেখতে পাবেন অনেকগুলো লিস্ট সংযুক্ত করা আছে,সবগুলো যেমন একই সাথে পান করা সম্ভব নয় আবার অনেকের কাছে কফির ধরনের বিষয়টা পরিষ্কার নয়।আমরা সচরাচর যে কফি পান করি তার বেশীর ভাগই আসে আরবিকা নামক এক প্রজাতির কফির বীজ থেকে । আরবিকা সাধারণত বিশ্বব্যাপী উৎপাদিত কফির 60 থেকে 70 শতাংশ সাপ্লাই দিয়ে থাকে । বিশ্বে যত প্রকার কফি রয়েছে সবগুলো সম্পর্কে জানানো প্রায় অসম্ভব আমি কিছু কমন এবং জনপ্রিয় কফির প্রজাতি নিয়ে আলোচনা করব ।

আমি এখানে চারটি প্রাথমিক ধরণের কফি নিয়ে আলোচনা করব: আরবিকা (কফি আরবিকা), রোবস্টা (কফি ক্যানিফোরা), লাইবেরিকা (কফি লাইবেরিকা), এবং এক্সেলাসা (কফি লাইবেরিকা ভ্যার দেউভ্রেই)।

আরবিকা

আরবিকা

বিশ্বের সবথেকে বেশি পান করা এবং বিপণনযোগ্য কফি হচ্ছে আরবিকা এর কারণ হচ্ছে এর মিষ্টি এবং সূক্ষ্ম স্বাদ এবং এই কফি কম অ্যাসিডযুক্ত। আরবিকা কফি বীজ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে উচ্চতর উচ্চতা সম্পন্ন অঞ্চলে চাষ করা হয়,বিশেষত যেখানে প্রচুর বৃষ্টি হয়, প্রকৃতপক্ষে ব্রাজিল বৃষ্টিপাতের জন্য খ্যাত।ব্রাজিল আরবিকা শিমের সর্বোচ্চ রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে পরিচিত।

রোবস্তার

রোবস্তার

বিশ্বব্যাপী উৎপাদনের ক্ষেত্রে রোবস্তার কফি তৈরির শিম তালিকার দ্বিতীয় নম্বরে আছে । এটি ইউরোপ, মধ্য প্রাচ্য এবং আফ্রিকার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়। রোবস্টা কফিতে অত্যন্ত উচ্চ মাত্রায় ক্যাফিন থাকে, যা গাছটিকে আরবিকার প্রজাতির তুলনায় অনেক বেশি স্থিতিস্থাপক করে তোলে। এর কারণ ক্যাফিন গাছের জন্য ক্ষতিকারক পোকামাকড় দূর করতে দূষক হিসেবে কাজ করে। এই প্রজাতির কফি গাছ পরিবেশের জন্য বিশেষ সহনশীল তাই যেকোনো উচ্চতা এবং জলবায়ুতে জন্মাতে পারে ।

লাইবেরিকা

লাইবেরিকা

লাইবেরিকার কফি শিম খুব বিরল এগুলো খুব নির্দিষ্ট জলবায়ুতে জন্মাতে সক্ষম তাই বিশ্ব মার্কেটপ্লেসে যতটুকু এই কফির চাহিদা আছে ততটুকু উৎপাদন করা সম্ভব হয় না। অনেক জায়গায় এটি একটি মনোরোম আশ্চর্য হিসেবে বিবেচিত হয়। অনেকেই এই কফির সুগন্ধকে ফল বা ফুলের সাথে তুলনা করে । একটা সময় ছিল যখন লাইবেরিকার কফি অবিশ্বাস্যভাবে জনপ্রিয় ছিল।উনিশ শতকের শেষের দিকে, একটি উদ্ভিদ রোগ যা এখন “কফি মরিচা” নামে পরিচিত, পুরো পৃথিবী জুড়ে সমস্ত গাছ নষ্ট করে দিয়েছিল। এই সমস্যার বিকল্প হিসেবে কৃষক এবং সরকারি সংস্থাগুলো আরবিকা গাছ লাগানোকেই সর্বোচ্চ বিকল্প মনে করেছিলেন। ফিলিপাইনেরাই প্রথম লাইবেরিকা উদ্ভিদটি বিক্রি শুরু করেছিলেন। লাইবেরিকা উদ্ভিদের উল্লেখযোগ্য পরিমাণে এবং একমাত্র সরবরাহকারী হিসাবে দেশটি তার অথনীতি ব্যাপক উন্নতি এনেছিলেন। তখন ফিলিপাইন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অঞ্চল ছিল,তবে এর অর্থনীতি বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে দেশটি তার স্বাধীনতা ঘোষণা করে। ফলস্বরূপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে এবং দেশে সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। এর ফলে চূড়ান্তভাবে বিশ্ববাজারে লাইবেরিকার কফির পতন ঘটল।

এক্সেলসা

এক্সেলসা

এক্সেলসা প্রযুক্তিগতভাবে লাইবেরিকা পরিবারের সদস্য, তবে এর প্রজাতিটি অবিশ্বাস্যভাবে পৃথক। উপরে বর্ণিত লাইবেরিকা কফির মতো, এক্সেলসা মূলত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় জন্মে এবং এটি বিশ্বের কফি উৎপাদনের একটি ক্ষুদ্র অংশকেই উপস্থাপন করে। এক্সেলসা অল্প পরিমাণে উৎপাদন হলেও এর একটি বিশেষ স্বাদ রয়েছে এটি মূলত এশিয়ার অনেক জনপ্রিয়।\

কফি ব্র্যান্ড

কফি নাকি চা এই দুটি বিষয়ে বিশ্ব দুই ভাগে বিভক্ত, একদল কফি পান করে এবং আরেকদল চা পান করে। বেশিরভাগ পশ্চিমা মানুষ কফি প্রচুর পরিমাণে পান করেন তবে তার বেশিরভাগ মানুষই পূর্বে চা পান করতেন। কফি বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসে বলে এর স্বাদ ও অনেক ভিন্নতা রয়েছে আপনি কিভাবে এটি তৈরি করছেন তার ওপর অনেক কিছু নির্ভর করে।যেমন নেসক্যাফে তৈরীর পদ্ধতি ম্যাককেফে বা স্টারবাক্সের এর থেকে সম্পূর্ণ আলাদা ।চলুন আপনাদেরকে বিশ্বের কিছু জনপ্রিয় কফি ব্র্যান্ডের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া যাক।

স্টারবাক্স

স্টারবাক্স

স্পষ্টভাবে কফির বাজারে নেতৃত্ব স্থানে আছে স্টারবাক্স,সারাবিশ্বে কফির মার্কেটের 10.1% ভাগ রয়েছে স্টারবাক্স এর দখলে। বিশ্বজুড়ে স্টারবাক্স এর 50 হাজারেরও বেশি স্টোর রয়েছে,স্টারবাকস একদিনে কয়েক মিলিয়ন কাপ কফি বিক্রি করে। অনেকেরই অভ্যাসে পরিণত হয়েছে সকালবেলা উঠে স্টারবাক্স এর এক কাপ কফি পান করার। আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দিয়ে মানুষকে কাছে টানতে স্টারবাকস খুবই দক্ষ।স্টারবাকস এর কাছে খুব ভালো কুকিজ এবং অন্যান্য পণ্য রয়েছে যা গ্রাহকরা কফির সাথে খেতে পারে।

কোস্টা কফি

কোস্টা কফি

বৃটেনের একটি বৃহত্তম কফি কম্পানি হচ্ছে কোস্টা কফি। স্টারবাকস এর দীর্ঘকালীন প্রতিযোগী,বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিক্রি হওয়া কফি কম্পানি।কোস্টা কফি প্রায় 30 টি দেশে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে এবং তাদের 5000 টির ও বেশি আউটলেট রয়েছে।কোস্টা কফির আরো বেশ কিছু পণ্য রয়েছে যেমন চা, কোলড্রিংস,স্যান্ডউইচ। কোস্টা কফি নিজেকে কফির প্রিমিয়াম ব্র্যান্ড হিসাবে চিহ্নিত করে । তবে বিক্রি হওয়া মোট কফি কাপের ক্ষেত্রে কোস্টা কফি এবং স্টারবাকসের মধ্যে একটি বড় ব্যবধান রয়েছে।

ডানকিন ডোনাটস

ডানকিন ডোনাটস

ডানকিন ডোনাটস বিশ্বের স্টোর সংখ্যায় স্টারবাকসের ঠিক পিছনে। ডানকিন ডোনাটস ডোনাটসের জন্য বিখ্যাত। উইলিয়াম রোজেনবার্গ নামক ভদ্রলোক ডানকিন ডোনাটস শুরু করেছিলেন।1950 থেকে ডানকিন ডোনাটস কফির সুস্বাদু স্বাদে মানুষের মুখ ভিজিয়ে চলেছে। কেবলমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডানকিন ডোনাটসের বাজার রয়েছে 7.1%।

ম্যাক ক্যাফে

ম্যাক ক্যাফে

ম্যাক ক্যাফে ম্যাকডোনাল্ডসের মালিকানাধীন,এবং ১৯৯৩ সালে এটি চালু হয়েছিল । অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মতো দেশে ম্যাক ক্যাফে শীর্ষস্থানীয় কফির ব্র্যান্ড।ম্যাক ক্যাফের অন্যতম প্রধান সুবিধা হল ম্যাকডোনাল্ডের বিশাল উপস্থিতি। যেখানেই ম্যাকডোনাল্ডের স্টোর রয়েছে ইতিমধ্যে ম্যাক ক্যাফে স্টোরটিতে ব্র্যান্ড আউট করার সুযোগ তৈরি হয়ে আছে। যেহেতু আমরা ম্যাকডোনাল্ডের সম্ভাবনা এবং উন্নয়নশীল বা উন্নত দেশগুলিতে এর সম্প্রসারণের অবস্থা সম্পর্কে জানি, আমরা নিশ্চিত ভাবে বলতে পারি যে আগামী বছরগুলিতে ম্যাক ক্যাফে বিশ্বব্যাপী আরও ব্যাপক সম্প্রসারিত হবে। ম্যাক ক্যাফে কফির পাশাপাশি অন্যান্য পানীয় রয়েছে বলে জানা যায় ।

টিম হর্টন্স

Tim Hortons

টিম হর্টন্স কানাডা থেকে উদ্ভূত এবং কানাডার বাজারে দুর্দান্ত উপস্থিতি রয়েছে।কানাডার সবথেকে জনপ্রিয় কফির ব্র্যান্ড
টিম হর্টন্স ডোনাটস এবং কফি উভয়ই বিক্রি করে এবং এটি একটি বহুজাতিক ফাস্ট ফুড রেস্টুরেন্ট এবং তাদের দ্রুত সার্ভিসের জন্য খুব পরিচিত। টিম হর্টন্স 2014 সালে বার্গার কিং কিনেছিল,যা ইতিমধ্যে কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেশ ভাল মার্কেট শেয়ারের অংশীদার । টিম হর্টন্স বিশ্বের বৃহত্তম এবং জনপ্রিয় কফি ব্র্যান্ডের একটি।

গ্লোরিয়া জিন্স

গ্লোরিয়া জিন্স
https://commons.wikimedia.org

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো অঙ্গরাজ্য থেকে গ্লোরিয়া জিন্স কফি সংস্থার উৎপত্তি হলেও এটি অস্ট্রেলিয়ায় বেশি কার্যক্রম পরিচালনা করে । ইতিমধ্যে অস্ট্রেলিয়ায় গ্লোরিয়া জিন্সএর 450 টি আউটলেট রয়েছে। গ্লোরিয়া জিন্স অস্ট্রেলিয়ায় একটি খুচরা খাদ্য কোম্পানি নামে পরিচিত। এই সংস্থাটির ইতিমধ্যে অস্ট্রেলিয়ায় 600 বেশি স্টোর রয়েছে । গ্লোরিয়া জিন্স অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি কফি ব্র্যান্ডের মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছে,গ্লোরিয়া জিন্স এর বিশ্বজুড়ে এক হাজারেরও বেশি স্টোর রয়েছে এবং এটি দুর্দান্ত এবং প্রিমিয়াম কফির জন্য পরিচিত।

নেস্ক্যাফে

Nescafe

আপনি পৃথিবীর যেখানেই যান না কেন নেস্ক্যাফে একটি পরিচিত এবং প্রিয় নাম,পশ্চিম থেকে পূর্ব পর্যন্ত নেস্ক্যাফে এমন একটি ব্র্যান্ড যা তাৎক্ষণিক আপনি যে কোন জায়গায় খুঁজে পাবেন । নেস্ক্যাফে এত জনপ্রিয় হওয়ার প্রধান কারণ হলো নেসক্যাফের কফির মান । নেস্ক্যাফে ও বিজ্ঞাপনের জন্য অনেক স্মার্ট। বিজ্ঞাপন প্রচার করে সেই নব্বই দশক থেকে মানুষের মন জয় করে আসছে।ম্যাগি,নেস্ক্যাফে এবং আরও অনেক এফএমসিজি ব্র্যান্ডের পণ্য তাদের বিজ্ঞাপন সুবিধার কারণে সারা বিশ্ব জুড়ে বিস্তৃত উপস্থিতি পেয়েছে । সম্ভবত বিপণন সুবিধার কারণে নেস্ক্যাফে প্রচুর টার্নওভার করছে । কারোই স্বীকার করতে দ্বিধা নেই নেস্ক্যাফে কফির একটি শীর্ষ ব্র্যান্ড।

কফির উপকারিতা

ইতিমধ্যে আমরা জেনেছি কফি বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় পানীয়। কফির উচ্চমাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং উপকারী উপাদানের জন্য কফিকে একটি ধন্যবাদ আমরা দিতেই পারি। এ পর্যন্ত অনেক গবেষণায় দেখা গেছে কফি বেশকিছু রোগের ঝুঁকি কমাতে সক্ষম। নিচে কফি পান করার উপকারিতা তুলে ধরা হলো।

শক্তি বৃদ্ধি করতে এবং আপনাকে আরো স্মার্ট করে তুলতে পারে

শক্তি বৃদ্ধি

কফি মানুষের ক্লান্তি দূর করতে এবং শক্তির মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।এর কারণ কফিতে ক্যাফিন নামক একটি উদ্দীপক রয়েছে,ক্যাফিন হচ্ছে বিশ্বের সর্বাধিক ব্যবহৃত হয় এমন মনস্তান্তিক পদার্থ । আপনি কফি পান করার পরে ক্যাফিন আপনার রক্তে প্রবাহিত হয় এবং সেখান থেকে এটি আপনার মস্তিষ্কে পৌঁছে যায়। মস্তিষ্কে, ক্যাফিন ইনহিবিটরি নিউরোট্রান্সমিটার অ্যাডেনোসিনকে ব্লক করে। যখন এটি ঘটে, ন্যোরপাইনফ্রাইন এবং ডোপামিনের মতো অন্যান্য নিউরোট্রান্সমিটারের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়, ফলে নিউরন বর্ধিত হয়।অনেক গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে কফি মস্তিষ্কের ক্রিয়াকলাপের বিভিন্ন দিকগুলিতে উন্নতি করে – মেমরি, মেজাজ, নজরদারি, শক্তির স্তর, প্রতিক্রিয়া সময় এবং সাধারণ মানসিক ক্রিয়া।

ফ্যাট কমাতে কফি আপনাকে সাহায্য করতে পারে

ফ্যাট কমাতে কফি

ফ্যাট কমানোর জন্য যতগুলো পণ্য দেখবেন সব পণ্যের মধ্যে ক্যাফেইন এর উপস্থিতি থাকবে । এটি ফ্যাট কমাতে সহায়ক প্রাকৃতিক উপাদান গুলোর মধ্যে একটি। বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে ক্যাফিন আপনার বিপাকীয় হার k3 থেকে 10 শতাংশ বাড়িয়ে তুলতে পারে। অন্যান্য গবেষণায় দেখা যায় যে ক্যাফিন স্থূলকায় ব্যক্তিদের মধ্যে 10% এবং হতাশাগ্রস্থ মানুষদের মধ্যে 29% চর্বি কমাতে বিশেষ সহযোগিতা করতে পারে। তবে সম্ভবত দীর্ঘমেয়াদী কফি পানকারীদের মধ্যে এই প্রভাব হ্রাস পায়।

কফি শারীরিক সক্ষমতার উন্নতি করতে পারে

শারীরিক সক্ষমতার উন্নতি

ক্যাফিন আপনার স্নায়ুতন্ত্রকে উদ্দীপিত করে, শরীরের মেদ কমাতে ফ্যাট কোষকে সংকেত দেয়।কফি আপনার রক্তে এপিনেফ্রিন (অ্যাড্রেনালাইন) মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। এটি হ’ল ফাইট-ও-ফ্লাইট হরমোন, যা আপনার শরীরকে তীব্র শারীরিক পরিশ্রমের জন্য প্রস্তুত করে। ক্যাফিন দেহের চর্বি গলিয়ে দেয় সিফাট এসিড শরীরের জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ক্যাফিন গড়ে 11-22% দৈহিক কার্যকারিতা উন্নত করতে পারে। অতএব আপনি জিমে যাওয়ার আধাঘন্টা আগে এক কাপ কড়া কফি খেতে পারেন যা আপনার শারীরিক ক্ষমতা বাড়িয়ে দিতে পারে।

কফিতে অনেক প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান রয়েছে

প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান

আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় অনেক পুষ্টি উপাদান কফিতে থাকে। এক কাপ কফিতে যা থাকে

১ রিবোফ্লাভিন (ভিটামিন বি 2): রেফারেন্স ডেইলি ইনটেক (আরডিআই) এর 11%।
২ প্যানটোথেনিক অ্যাসিড (ভিটামিন বি 5): আরডিআইয়ের 6%।
৩ ম্যাঙ্গানিজ এবং পটাসিয়াম: আরডিআইয়ের 3%।
৪ ম্যাগনেসিয়াম এবং নিয়াসিন (ভিটামিন বি 3): আরডিআইয়ের 2%।

যিনি কফি পছন্দ করেন সাধারণত উনি দিনে কয়েক কাপ কফি পান করে থাকেন । একটি মানুষ যত কাপ কফি পান করছে এই উপাদানগুলো তার শরীরে যুক্ত হচ্ছে।

কফি টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে পারে

ডায়াবেটিস

টাইপ 2 ডায়াবেটিস একটি বড় স্বাস্থ্য সমস্যা যা বর্তমানে বিশ্বব্যাপী লক্ষ লক্ষ মানুষকে সমস্যায় ফেলেছে। আমাদের দেশে সাধারণত এটি ইনসুলিন দ্বারা রক্তের শর্করার উপস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার রোগ হিসেবে চিহ্নিত হয়। যারা নিয়মিত কফি পান করেন তাদের টাইপ 2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পায়। গবেষণায় দেখা যায় যে, যারা নিয়মিত কফি পান করেন তাদের এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি 23-50% কম থাকে।

কফি আপনাকে আলঝাইমার এবং ডিমনেশিয়া রোগ থেকে রক্ষা করতে পারে।

dementia,Alzheimer's

সাধারণত আলঝেইমার হল নিউরোডিজেনারেটিভ রোগ এটি বিশ্বব্যাপী স্মৃতিভ্রংশের রোগ হিসেবে পরিচিত । এই রোগটি সাধারণত 65 বছরের বেশি বয়স্ক মানুষকে এফেক্ট করে এবং এই রোগের কোন চিকিৎসা নেই তবে এই রোগ যখন প্রাথমিক অবস্থায় থাকে এর প্রতিরোধ করার অনেক উপায় রয়েছে।এরমধ্যে স্বাস্থ্যকর খাওয়া এবং অনুশীলন প্রধান কার্যকরী মাধ্যম হিসেবে কাজ করে । তবে কফি পান করাও অবিশ্বাস্যভাবে কার্যকর হতে পারে।

কফি আপনার লিভারকে রক্ষা করতে পারে

liver

আপনার লিভার একটি আশ্চর্যজনক অঙ্গ যা কয়েকশো গুরুত্বপূর্ণ কার্য সম্পাদন করে। বেশ কয়েকটি কমন রোগ আপনার লিভারকে ক্ষতিগ্রস্ত করে যেমন হেপাটাইটিস, ফ্যাটি লিভার ডিজিস এবং আরও অনেকগুলি। কফি আপনার লিভার কে এই রোগ গুলি ছাড়াও সিরোসিস থেকে রক্ষা করতে পারে – যারা প্রতিদিন 4 বা তার বেশি কাপ কফি পান করেন তাদের এরূপ রোগ থেকে রক্ষা পাবার ঝুঁকি ৮0% পর্যন্ত কম থাকে।

কফি হতাশার বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে এবং আপনাকে আরও আত্মবিশ্বাসী করে তুলতে পারে

depression

হতাশা একটি মারাত্মক মানসিক ব্যাধি। হতাশা মানুষের শারীরিক কার্যক্ষমতা এবং উদ্দীপনা অনেক কমিয়ে দিতে পারে। শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৪.১% লোক ক্লিনিকাল ডিপ্রেশনে রোগে ভুগছে। ২০১১ সালে প্রকাশিত হার্ভার্ডের এক গবেষণায়, যে মহিলারা প্রতিদিন 4 বা তার বেশি কাপ কফি পান করেন তাদের হতাশার ঝুঁকি 20% কম ছিল । 2,08.424 ব্যক্তিদের মধ্যে অন্য গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা প্রতিদিন 4 বা ততোধিক কাপ কফি পান করেন তাদের আত্মহত্যার ফলে মারা যাওয়ার সম্ভাবনা 53% কম ছিল ।

কফি স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে পারে

স্ট্রোকের ঝুঁকি

এটি প্রায়শই দাবি করা হয় যে ক্যাফিন আপনার রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে পারে। এটি সত্য, তবে কেবল 3-4 মিমি / এইচজি পর্যন্ত বাড়ায়। যদি আপনি নিয়মিত কফি পান করেন তাহলে আপনার শরীর থেকে এর প্রভাব ছড়িয়ে যায়। আপনার যদি রক্তচাপের সমস্যা থেকে থাকে তাহলে কফি পান করার আগে অবশ্যই আপনাকে তা মাথায় রাখতে হবে। কফি হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় এটি একটি ভুল ধারণা, বিপরীতে এমন কিছু প্রমাণ রয়েছে যে মহিলারা কফি পান করার কারণে তাদের এই ঝুঁকি হ্রাস পায়।কিছু গবেষণা এও দেখায় যে কফি পানকারীদের স্ট্রোকের ঝুঁকি 20% কম থাকে।

কফি আপনাকে আরও দীর্ঘজীবী হতে সহায়তা করতে পারে

দীর্ঘজীবী

নিয়মিত কফি পান করা ব্যক্তির অনেক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকায় একটি অনুমান করা হয় যে কফি আপনাকে আরও বেশি দিন বাঁচতে সহায়তা করতে পারে। বেশ কয়েকটি গবেষণায় ইঙ্গিত দেওয়া হয় যে কফি পানকারীদের মৃত্যুর ঝুঁকি কম থাকে। দুটি গবেষণায় দেখা যায় কফি পান করা পুরুষদের মৃত্যুর ঝুঁকি 20% এবং 18 থেকে 24 বছরের মহিলাদের ক্ষেত্রে মৃত্যুঝুঁকি 26 শতাংশ হ্রাস পায়। টাইপ টু ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে প্রতি বিশেষভাবে লক্ষণীয় একটি 20 বছরের গবেষণায় উঠে এসেছে টাইপ-টু রোগে ভুক্তভোগী রোগীরা যারা নিয়মিত কফি পান করেন তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি 30% কম ছিল।

কফির অপকারিতা

অনেক আমেরিকান দাবি করেন যে তারা সকালবেলা এক কাপ কফি পান করা ছাড়া কাজ শুরু করতে পারেন না । অনেক ক্ষেত্রে এটা সত্যি যে 1 কাপ কফি আমাদেরকে চাঙ্গা করে তুলতে পারে। কফি পান করার যেমন অনেক উপকার রয়েছে তেমনি কফিপানে কিছু শারীরিক ক্ষতির কারণও রয়েছে নিচে এক এক করে সব বর্ণনা করা হলো।

রক্তচাপ বৃদ্ধি

blood pressure

হার্ভার্ড মেডিকেল বিদ্যালয়ের মতে, ক্যাফিন সাধারণত দীর্ঘায়িত সময়ের জন্য আপনার রক্তচাপকে বাড়িয়ে তোলে না। তবে কিছু কিছু গবেষকদের মতে কফি উচ্চ রক্তচাপ বাড়াতে পারে। অবশ্যই পক্ষে-বিপক্ষে অনেক মতামত রয়েছে।

নিয়মিত মাথাব্যথা

মাথাব্যথা

যদি আপনি অতিরিক্ত কফি পান করেন তাহলে এটি আপনার দীর্ঘস্থায়ী মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠতে পারে । আমেরিকান জার্নাল অফ মেডিসিনের প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় মাইগ্রেননের সমস্যায় ভোগা প্রায় 100 জন লোককে কত ঘন ঘন তারা ক্যাফিনেটেড পানীয় খাওয়া হয় জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল (এর মধ্যে কফি, চা, কার্বনেটেড পানীয় রয়েছে)। যারা প্রতিদিন কমপক্ষে তিনটি ক্যাফিনেটেড পানীয় পান করেন, তাদের মাইগ্রেন সমস্যা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। অবশ্যই, ক্যাফিন গ্রহণ এবং মাইগ্রেনের মাথাব্যথার বিষয়ে অনেক কিছুই অনিশ্চিত রয়ে গেছে।

নির্বিঘ্ন ঘুমের সমস্যা

ঘুমের সমস্যা

বিছানায় শুয়ে গড়াগড়ি করছেন কিন্তু ঠিকভাবে ঘুমাতে পারছেন না হতে পারে আপনি রাতে যে কফি খেয়েছেন সেটা অনেক দেরিতে খেয়েছেন । এটা অবশ্যই দেরিতে কফি খাওয়ার ফলাফলে হতে পারে। জার্নাল অফ ক্লিনিকাল স্লিপ মেডিসিনে প্রকাশিত ২০১৩ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে শোয়ার ছয় ঘন্টা আগে ক্যাফিন পান করা আপনার সেই রাতে ঘুমানোর সময়কে এক ঘণ্টা কমিয়ে আনতে পারে।

আসক্তি

Addiction

ক্যাফিনের সমস্ত স্বাস্থ্য উপকারিতা সত্ত্বেও, এটি অস্বীকার করার উপায় নেই যে এটি অভ্যাস তৈরি হতে পারে। একটি পর্যালোচনা থেকে জানা যায় যে ক্যাফিন যদিও কোকেন এবং অ্যাম্ফিটামিন এর মত মস্তিষ্কের রাসায়নিকগুলির ক্ষতি করে না তবে এটি আসক্তি সৃষ্টি করতে পারে। একটি সমীক্ষায় 16 জন ব্যক্তির উপর পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে যারা সাধারণত উচ্চ মাঝারি অথবা কোন ক্যাফেইন গ্রহণ করেন তারা ক্যাফিন ছাড়া কে ড্রাগের মত মনে করেন।

হার্ট রেট বেড়ে যাওয়া

heart rate

উচ্চমাত্রায় ক্যাফিন গ্রহণ আপনার হার্ট রেট বাড়িয়ে তুলতে পারে । এক গবেষণায় দেখা গেছে যারা উচ্চ মাত্রায় ক্যাফিন গ্রহণ করেন তাদের খুব দ্রুত হৃদয় স্পন্দন,কিডনি সমস্যা এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে। তবে এই প্রবাদটি সবার জন্য প্রযোজ্য নয় কিছু কিছু মানুষ প্রচুর মাত্রায় ক্যাফেইন গ্রহণ করতে পারে কোন সমস্যা ছাড়াই।

হালকা থেকে মাঝারি ক্যাফিন গ্রহণ অনেক স্বাস্থ্য সুবিধা দিতে পারে অন্যদিকে উচ্চমাত্রায় ক্যাফেইন গ্রহণ স্বাভাবিক জীবনযাত্রা অনেক পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া ডেকে আনতে পারে। বিশেষত যাদের মারাত্মক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা রয়েছে যদিও পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া ব্যক্তিভেদে পৃথক হয়।

Reference

https://www.medicalnewstoday.com/articles/270202

https://www.healthline.com/nutrition/top-13-evidence-based-health-benefits-of-coffee

https://www.ncausa.org/about-coffee/history-of-coffee

https://tbsnews.net/feature/food/top-10-popular-coffee-brands-worldwide-145804

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Bengali BN English EN Hindi HI