স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা

করলা খাওয়ার উপকারিতা এবং অপকারিতা

করলা খাওয়ার উপকারিতা

বর্তমান সময়ে ফাস্টফুড/জাঙ্ক ফুডের উন্মাদনা এতটাই বেড়ে গেছে যে মানুষ খুব কমই এমন সবজি খায় বা যা তাদের শরীরে প্রয়োজনীয় শক্তি যোগায়। তবে খুব কম মানুষই জানেন এমন কিছু সবজি আছে যা কয়েকদিন খেলেই উপকার পাওয়া যায়। তেমনই একটি সবজি করলা। যা টিসেল, কাকরোল, কাঁকরো, কোকোদা ইত্যাদি নামে পরিচিত।

এটি অনেক দেশে চাষ করা হচ্ছে। দৃষ্টিতে এটি করলার মতো হলেও করলার চেয়ে ছোট। এটি মিষ্টি করলা নামেও পরিচিত। এটি সাধারণত বর্ষাকালে বাজারে প্রদর্শিত হয়। এই সবজিতে এতটাই শক্তি আছে যে কয়েকদিন খেলেই শরীর সুস্থ হয়ে ওঠে।

করলা খাওয়ার উপকারিতা

করলার উপকারিতা

করলা সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর সবজি

আপনি কি জানেন করলা বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী সবজি এবং এটি ঔষধি আকারেও ব্যবহৃত হয়? এটি হালকা বদহজম এবং এতে বিভিন্ন রাসায়নিক উপাদান পাওয়া যায়, যা মানবদেহকে সুস্থ রাখতে কার্যকর।

করলায় মাংসের চেয়ে বেশি প্রোটিন

এই সবজিটি যেমন সুস্বাদু তেমনি প্রোটিনে পরিপূর্ণ। প্রতিদিন এটি খেলে শরীর শক্তিশালী হয়। বলা হয় যে এটিতে মাংসের চেয়ে 50 গুণ বেশি শক্তি এবং প্রোটিন রয়েছে।

ওজন কমানোর জন্য করলালার স্বাস্থ্য উপকারিতা

এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন এবং আয়রন পাওয়া যায় যখন ক্যালোরি অল্প পরিমাণে থাকে। ওজন কমানোর লোকদের জন্য এটি একটি ভাল বিকল্প কারণ 100 গ্রাম করলা খাওয়া তাদের 16 ক্যালোরি দেয়।

ক্যান্সারে করলার স্বাস্থ্য উপকারিতা

ক্যান্সার একটি মারাত্মক রোগ। করলা এটিকে রক্ষা করতে কিছুটা সহায়ক হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে করলার নির্যাসে ক্যান্সার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। গবেষণা অনুসারে, করলা উদ্ভিজ্জ নির্যাস ব্যবহার করে 50 শতাংশ পর্যন্ত ক্যান্সার কোষ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

আরেকটি গবেষণায় জানা গেছে যে করলা মূলের নির্যাসে ক্যান্সার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই সম্পত্তি ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি থেকে প্রতিরোধ করতে পারে। সচেতন থাকুন যে ক্যান্সার একটি গুরুতর রোগ, যার জন্য চিকিত্সা ঘরোয়া প্রতিকারের উপর নির্ভর করা উচিত নয়। কেউ এ রোগে আক্রান্ত হলে দ্রুত চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ করলা

করলা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর। এনসিবিআই (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটের গবেষণায়ও এটি উল্লেখ করা হয়েছে। তার মতে, করলাতে ফ্ল্যাভোনয়েড উপাদান রয়েছে, যা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কার্যকলাপ প্রদর্শন করে।

এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি শরীরের ফ্রি র্যাডিকেলগুলির দ্বারা সৃষ্ট ক্ষতি প্রতিরোধ করতে এবং ধীর করতে পারে। এই ফ্রি র‌্যাডিকেল এবং ফ্রি র‌্যাডিক্যালের পরিমাণ বেশি হয়ে গেলে হৃদরোগ, ক্যান্সার এবং লিভারের সমস্যার ঝুঁকি বাড়তে পারে।

করলা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে

করলায় থাকা মোমরডিকা উপাদান এবং ফাইবার উপাদান শরীরের জন্য একটি ওষুধ। Momordica উপাদানটি একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিডায়াবেটিস এবং অ্যান্টিস্ট্রেস হিসাবে কাজ করে যা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

পাচনতন্ত্রের জন্য করলার স্বাস্থ্য উপকারিতা

এতে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটারি ফাইবার পাওয়া যায়। তাই এটি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর হয়। মলত্যাগ সহজে হয়। এই সবজি খেলে পাকস্থলীতে উপস্থিত ক্ষতিকর অ্যাসিড নিরপেক্ষ হয়ে যায়, যার ফলে অ্যাসিডিটির অভিযোগ দূর হয়।

করলা ত্বকের জন্য উপকারী

করলার ব্যবহার স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বকের জন্যও উপকারী হতে পারে। একটি গবেষণা পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে যে করলা পাতার পেস্ট ত্বকের রোগ থেকে মুক্তি দেয়। এর কাঁচা ফল অর্থাৎ কোমল করলা ব্রণ কমাতে পরিচিত। এছাড়াও, কানতোলার ভাজা বীজ একজিমা এবং অন্যান্য ত্বক-সম্পর্কিত সমস্যা এর জন্য উপকারী হতে পারে।

শুধু তাই নয়, করলা মূলের গুঁড়ো ব্যবহার ত্বকের জন্যও উপকারী। এটি মুখে লাগালে ত্বক নরম হয়ে যায়। এছাড়াও, এটি ত্বকে ঘাম কমাতে পারে। এই সুবিধাগুলির জন্য কোন উপাদান এবং বৈশিষ্ট্যগুলি সহায়ক তা এখনও স্পষ্ট নয়।

গর্ভাবস্থায় করলার স্বাস্থ্য উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ অবস্থা দেখা দিতে পারে, যার মধ্যে একটি হল নিউরাল টিউব ত্রুটি। গর্ভবতী মহিলারা যদি গর্ভাবস্থায় তাদের খাদ্যতালিকায় কানটোলা অন্তর্ভুক্ত করেন, তাহলে নিউরাল টিউব ডিফেক্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। কারণ ক্যান্টোলা ভিটামিন বি এবং সি এর একটি ভালো উৎস।

টাইপ-২ ডায়াবেটিসে করলার স্বাস্থ্য উপকারিতা

রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বেড়ে গেলে ডায়াবেটিস সমস্যা হতে পারে। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ইঁদুরের উপর গবেষণায় দেখা গেছে যে করলার অ্যান্টিডায়াবেটিক এবং হাইপোগ্লাইসেমিক প্রভাব রয়েছে। করলার এই বৈশিষ্ট্যগুলি রক্তে উপস্থিত চিনির মাত্রা কমাতে এবং নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধে এটিকে খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।

করলা খাওয়ার অপকারিতা

করলা খাওয়ার অপকারিতাকরলা খাওয়ার অপকারিতা

করলার স্বাস্থ্য উপকারিতার পাশাপাশি কিছু অসুবিধাও থাকতে পারে। এই কারণে করলা শুধুমাত্র পরিমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত। এখানে আমরা এটির অতিরিক্ত ব্যবহারে করলার ক্ষতি সম্পর্কে কথা বলছি।

  • করলা খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ কমে যেতে পারে। যাদের শর্করার সমস্যা কম তারা চিকিৎসকের পরামর্শেই এটি গ্রহণ করুন।
  • এর মূলে শুক্রাণু নাশক এবং প্রজননরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে।
  • সংবেদনশীল ব্যক্তিদের করলায় অ্যালার্জি হতে পারে, তাই চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করুন।

করলা কীভাবে ব্যবহার করবেন

করলা নানাভাবে ব্যবহার করা যায়। এখানে আমরা আপনাকে এর কিছু সাধারণ ব্যবহার সম্পর্কে বলছি।

  • এটি রান্নাঘরে সবজি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।
  • খুব বেশি জ্বর হলে এর মূলের পেস্ট সারা শরীরে লাগাতে পারেন।
  • ব্রণ রোধ করতে করলার পাউডার ত্বকে লাগাতে পারেন।
  • এর শুকনো মূলের পাউডার ত্বককে নরম করতে এবং ঘাম কমাতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • করলার জুস বানিয়ে পান করতে পারেন।
  • এর ভুনা বীজের গুঁড়া বানিয়ে একজিমা প্রতিরোধ করা যায়।

কখন ব্যবহার করতে হবে

লাঞ্চ বা ডিনারে যে কোনো সময় করলা সবজি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এর মূলের রসও সকালে খালি পেটে খেতে পারেন।

পরিমাণ

সকালে খালি পেটে এর মূলের 50 মিলি রস খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়া শারিরীক সমস্যা অনুযায়ী এর সবজির রস বা পাল্প বিভিন্ন মাত্রায় সেবন করা হয়। এটি একটি ওষুধ হিসাবে গ্রহণ করার আগে, আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনি জেনেছেন কিভাবে করলায় পাওয়া ঔষধিগুণ এবং পুষ্টিগুণ স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হতে পারে। এর উপকারিতা জানার পর, আপনি অবশ্যই এটিকে আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করবেন, তবে এটি খুব বেশি গ্রহণ করবেন না। অন্যথায়, নিবন্ধে বর্ণিত করলা ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। সুস্থ থাকতে করলা খাওয়ার পাশাপাশি নিয়মিত ব্যায়াম এবং সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Bengali BN English EN Hindi HI