বইয়ের রাজ্য

অর্থ সঞ্চয় করে ধনী হওয়ার উপায়

অর্থ সঞ্চয়

অনেক দিন আগের কথা ব্যাবিলনে আরকান নামে একজন লোক বসবাস করতো। সে অনেক ভালো ছিল অনেক টাকা পয়সা দান করতো অনেক টাকা খরচ করতো কিন্তু তার পরেও তার সম্পদ প্রতিনিয়ত বেড়ে চলত। এতটাই বাড়তো যে সে খরচ করেও শেষ করতে পারত না। একদিন তার কিছু পুরনো বন্ধুর সাথে তার দেখা হল। ডিপ্রেশনে থাকা তার বন্ধুরা তাকে জিজ্ঞেস করল আরকান তুমি এত ভাগ্যবান কিভাবে দেখো আজকে তুমি ব্যাবিলনের সবথেকে ধনী ব্যক্তি যেখানে আমাদের দুই বেলার খাবার যোগাড় করা অনেক কঠিন হয়ে যায়। তুমি সব থেকে দামি পোশাক পরো ভালো ভালো খাবার খাও যেখানে আমরা কোনরকম দুই বেলা খাবার , গায়ে দেওয়ার মতো একটু কাপড় এর কথা ছাড়া অন্য কিছু চিন্তা করতে পারিনা। কিন্তু একটা সময় ছিল যখন আমরা সবাই একই রকম ছিলাম একই স্কুলে পড়াশোনা করতাম একই রকম ভাবে চলাফেরা করতাম তখন তুমি আমাদের থেকে আলাদা ছিলে না তোমার মধ্যে কোন আলাদা গুনও ছিল না আমরা পরিশ্রম ও একই রকম করতাম তাহলে আরকান বল উপরওয়ালা কেন শুধু তোমার উপরেই তার রহমত দিচ্ছেন? কেন আমাদের দিকে ফিরেও তাকাচ্ছেন না? বন্ধুদের সব কথা শুনে আরকান বলল আমি অবশ্যই বলব। এসবকিছুই জন্যই হচ্ছে কারণ তোমরা এত বছরেও সম্পত তৈরি করার আসল উপায় শিখতে পারোনি হতে পারে তোমরা ভুলে গেছো সুতরাং আমি তোমাদেরকে ঐ সকল পদ্ধতি শিখাবো। আমার নিজের সাথে ঘটে যাওয়া অতীত থেকে। এগুলো তখন থেকে শুরু হয়েছিল যখন আমি অনেক ইয়ং ছিলাম। আমি আশেপাশের সব ভালো জিনিস দেখেছি আর বুঝে গিয়েছিলাম টাকা পয়সার খুব বেশি দরকার এসব জিনিসের জন্য। টাকা-পয়সার শক্তি যোগায় আমি তখনই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলাম আমি এই ভালো জিনিস গুলো থেকে আমার ভাগ ঠিকই বুঝে নিব । আমি শুরুটা পাথরের উপর লেখা দিয়ে শুরু করি আমি এক মাস ধরে খুব পরিশ্রম করে মাটির উপরে লিখেছিলাম কিন্তু আমি কোন লাভ দেখতে পাচ্ছিলাম না। আমার সব আয় খাওয়া-দাওয়া কাপড়চোপড়ে পিচনে শেষ হয়ে যাচ্ছিল। একদিন আলকামিস নামের একজন লোকের সাথে আমার দেখা হলো উনি আমাকে মাটির উপরে লেখার কিছু কাজ দিয়েছিলেন এবং বললেন তুমি যদি এই কাজ দুই দিনের ভিতরে শেষ করতে পারো আমি তোমাকে তোমার পারিশ্রমিক থেকে কিছু অতিরিক্ত টাকা দিব। এটা শুনে আমি খুব পরিশ্রম করতে লাগলাম কাজ শেষ করার জন্য কিন্তু দুই দিন পর যখন আলকামিস ফিরে আসলেন তখন পর্যন্ত কাজ শেষ হয়নি আলকামিস অনেক রাগান্বিত ছিল কিন্তু তার পরেও আমি সাহস করে বললাম আলকামিস তুমি তো অনেক ধনী ব্যক্তি দয়া করে আমাকে বল আমি কিভাবে ধনী হতে পারব। আমি তোমায় কথা দিচ্ছি তুমি যদি আমাকে ধনী হওয়ার উপায় বলে দাও এর পরিবর্তে আমি তোমার কাজটা আগামী কালকের ভিতরে বিনে পয়সায় করে দিব। আলকামিস হাসতে লাগলো আর বলল তোমার সাহস আমার অনেক ভালো লেগেছে তুমি আমার কাজটা শেষ করো আমি কালকে এসে তোমাকে ধনী হওয়ার গোপন উপায় গুলো বলে দিব। তারপর আমি রাত জেগে তার কাজটি শেষ করে রাখলাম পরের দিন সে যখন আসলো আমি তাকে বললাম আপনার কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে এখন আপনি আমাকে দয়া করে বলুন ধনী হওয়ার গোপন রহস্য গুলি। আলকামিস বলল ঠিক আছে মন দিয়ে শোনো।
আমার ধনী হওয়ার রাস্তা আমি তখনই খুঁজে পেয়েছিলাম যখন আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আমার আয় করা একটি অংশ সব সময় নিজের জন্য রাখা উচিত। আমি চিন্তা করতে করতে বললাম শুধু কি এটাই উনি হেসে বললেন শুধু পদ্ধততি একটা ছাগল চরানো ব্যক্তি কে আজ এত বড় ব্যক্তি বানিয়ে দিয়েছে যে তোমার সামনে দাঁড়িয়ে আছে । আচ্ছা তুমি কি কাপড় সেলাই করার জন্য ওই লোকটাকে টাকা দাও না /জুতা তৈরি করা ব্যক্তিটা কে বা অন্য কাজ করার জন্য বাকি লোকদেরকে। তুমি আমাকে বল তোমার গত মাসের আয় থেকে কত টাকা তুমি তোমার নিজের কাছে রেখেছো বা গত একবছরের আয় থেকে কত টাকা নিজের কাছে রেখেছো। তুমি অনেক বোকা।

আরকান তুমি সবাইকেই পারিশ্রমিক দিয়ে থাকো শুধু নিজেকে ছাড়া মনে রেখো যদি তুমি ধনী হতে চাও তাহলে তোমাকে সঞ্চয় করা শিখতে হবে এবং তোমার সঞ্চয় করা টাকা থেকে আয় করা শিখতে হবে। এই কথাটাকে খুব সহজ ভাবে নিওনা। এই মূল্যবান কথা তোমার সাথে শেয়ার করে আমি তোমাকে তোমার কাজের পারিশ্রমিক থেকেও হাজারগুণ বেশি পারিশ্রমিক দিচ্ছি। তোমার আয় করা টাকার একটি অংশ যা 10 শতাংশের কোনভাবেই কম না ওই টাকাটা তোমার কাছে রাখা উচিত তুমি জানো আরকান সম্পদ একটি গাছের মত যার শুরু হয় ছোট্ট একটি বীজ থেকে তোমার বাঁচানো প্রথম টাকাটা ওই বীজ হিসেবে কাজ করবে তোমার সম্পদ বাড়বে তোমার আয় করা 10% ঐরকম হবে যেমন তুমি বীজের উপরে পানি ঢালছো । তুমি এই ব্যাপারটা যত তাড়াতাড়ি শুরু করতে পারবে তত তাড়াতাড়ি তুমি ওই গাছের ছায়ার নীচে আশ্রয় নিতে পারবে এই কথাটা বলে আলকামিস চলে গেলেন।

আমি তার এই পদ্ধতি অবলম্বন করা শুরু করলাম আমি আমার উপার্জনের 10% আলাদা করে রাখতে লাগলাম অবাক করা বিষয় এইরকম করতে গিয়ে আমাকে খুব বেশি সমস্যায় পড়তে হয়নি। আমি ব্যাপারটার সাথে মানিয়ে গিয়েছিলাম এবং পুরো এক বছর এই পদ্ধতি অবলম্বন করে গিয়েছি একদিন আলকামিস আবার ফিরে আসলেন এবং আমাকে জিজ্ঞেস করলেন তোমার সঞ্চয় কেমন চলছে আমি বললাম, অনেক ভাল তখন উনি আমাকে জিজ্ঞেস করলে আমি ওই টাকা দিয়ে কি করেছি আমি তাকে বললাম টাকাটা আমি আমার এক বন্ধুকে দিয়েছি সে সমুদ্রপথে গিয়ে অন্য দেশ থেকে দামি জিনিসপত্র কম দামে কিনে আনতে গিয়েছে ওই জিনিসপত্র আমরা ব্যাবিলনে বিক্রি করে অনেক টাকা উপার্জন করবো উনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন তোমার বন্ধু কি এই কাজই করে আমি তাকে বললাম না সে তো এই কাজ করে না।

আলকামিস অনেক রেগে গেলেন উনি বললেন তুমি অনেক বড় ভুল করে ফেলেছ তুমি কিভাবে একটা লোককে বিশ্বাস করতে পারো যে লোকটা এই কাজে জন্য পারদর্শী না তুমি কি কখনো রংমিস্ত্রির কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করবা রকেট কিভাবে বানায় তোমার কাছে যদি নুন্যতম জ্ঞান থাকে তুমি তাদের কাছে যাবে যারা রকেট নিয়ে কাজ করে। তোমার উচিত ছিল যারা যে কাজ করে তাদেরকে ওই কাজ দেওয়ার। আচ্ছা বাদ দাও মানুষ ভুল করে শিখে তুমি আবার টাকা জমানো শুরু করে দাও এ কথা বলে উনি চলে গেলেন । তার কথাই সত্যি হয়েছিল আমার বন্ধু অন্য দেশে গিয়ে বোকা বনে এসেছিল সেসব টাকা দিয়ে নকল জিনিসপত্র কিনে এনেছিল আমাদের সব টাকা লস হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু আমি হার মেনে নেইনি আমি শুরু থেকেই শুরু করেছি । আরো একটি বছর কেটে গেল এবার যখন আলকামিস আবার আসলো আমি তাকে বললাম এইবার আমি আমার টাকা দিয়ে পিতল কিনেছি আর তা আমি ডাল বানানো লোকদেরকে দিয়েছি যে আমাকে মাসে একটি লভ্যাংশ দিয়ে থাকে আলকামিস এর কাছে এই ব্যাপারটা অনেক ভালো লাগলো তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন আমি ওই টাকাগুলো দিয়ে কী করি আমি তাকে বললাম লভ্যাংশ দিয়ে আমি আমার জন্য ভাল কাপড়-চোপড় ভালো খাবার দাবার এবং আমার পছন্দের জিনিসগুলো কিনে থাকি । আলকামিস হাসতে লাগলো উনি আমাকে বললেন তুমি তোমার গাছ বড় হওয়ার আগেই কেটে ফেলছো তুমি যদি এরকমটাই করতে থাকো তাহলে ওখানেই ফিরে যাবো যেখান থেকে শুরু করেছো। তোমার উচিত লভ্যাংশ আবার অন্য কোন জায়গায় ইনভেস্ট করা আর এরকমটা করতেই থাকা কোন ফালতু খরচ না করে । একটা সময় আসবে যখন তুমি মনের ইচ্ছে মতো খরচ করতে পারবে তোমার উপার্জন না কমিয়ে। কিন্তু ওই সময়টা এখনই না তারপর আলকামিস দুই বছর পর আমার সাথে দেখা করতে এলেন উনি আমাকে আমার ব্যবসা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন আমি বললাম এখন পর্যন্ত আমি যা চেয়েছিলাম তত টাকা তো ইনকাম করতে পারছিনা কিন্তু আমার ইনভেস্টমেন্ট টাকা উপার্জন করছে। ইনভেস্টমেন্ট থেকে লভ্যাংশ আবার ইনভেস্ট করে ইনকাম হচ্ছে আর এভাবেই চলছে আমি শেষ পর্যন্ত আপনার সহযোগিতায় শিখে গিয়েছি কিভাবে টাকা থেকে টাকা ইনকাম করতে হয় । এই কথা শুনে আলকামিস আমাকে তার পার্টনার বানিয়ে নিলেন এখন তোমরা দেখতেই পাচ্ছো আমি কোথায় পৌঁছে গিয়েছি । আমার ধনী হওয়ার গোপন সূত্র আমি তোমাদেরকে এই ঘটনার মধ্যেই বলে দিয়েছি আমি আশা করবো তোমরা এই পদ্ধতি অবলম্বন করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সম্পদ বানানো শুরু করে দিবে।

আমরা এই গল্প থেকে তিনটি শিক্ষা পেয়েছি প্রথমত

উপার্জন এর একটি অংশ নিজের জন্য রাখা

উপার্জন এর একটি অংশ নিজের জন্য রাখা



আমাদের উচিত। যে কোন উপায়ে আমাদের আয়ের 10% আমাদের নিজের জন্য রাখা আর বাকি 90% দিয়ে আমাদের সকল প্রয়োজন সম্পূর্ণ করা। যেকোনো মূল্যে আমাদের ওই 10% রাখা উচিত যতক্ষণ পর্যন্ত ওই 10% অন্য কোন জায়গায় ইনভেস্ট করার মতো ভালো সুযোগ না আসে।

অভিজ্ঞ লোকের কাছ থেকে পরামর্শ নেয়া

অভিজ্ঞ লোকের কাছ থেকে পরামর্শ নেয়া



জীবনে কোনো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ করে ইনভেস্টমেন্ট করার ক্ষেত্রে আমাদের উচিত যে কাজের জন্য যেই অভিজ্ঞতার তার কাছ থেকে পরামর্শ নেয়া।

ভবিষ্যতের জন্য কাজ করা

ভবিষ্যতের জন্য কাজ করা


আমরা যখন আমাদের ইনভেস্টমেন্ট থেকে টাকা উপার্জন করবো তখন আমাদের উচিত হবে খুব বেশি দরকারি জিনিস ছাড়া আজেবাজে জিনিসে খরচ না করে আবার ইনভেস্ট করে ফেলা ততক্ষণ পর্যন্ত ইনভেস্ট করা যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা ওই লেভেলে পৌঁছাতে না পারব আমরা অনেক খরচ করার পরেও আমাদের আয়ের উপরে কোনো প্রভাব না পড়ে । এসব কথা আমি দ্যা রিচেস্ট ম্যান ইন ব্যাবিলন থেকে বলেছি বইটি ফাইন্যান্স রিলেটেড বই। সম্পূর্ণ বইটি পড়লে অবশ্যই অনেক কিছু শিখতে পারবেন।

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Bengali BN English EN Hindi HI